ঢাকা      বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল ২০২১, ৯ বৈশাখ ১৪২৮
IMG-LOGO
শিরোনাম

ক্ষুদ্র নৃতাত্ত্বিক জনগোষ্ঠীর জীবন মান উন্নয়নে আলাদা সেল খোলা হয়েছে: খাদ্যমন্ত্রী (ভিডিও)

IMG
27 February 2021, 5:07 PM

নওগাঁ, বাংলাদেশ গ্লোবাল: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষুদ্র নৃতাত্ত্বিক জনগোষ্ঠীর কথা চিন্তা করে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে আলাদা একটি সেল খুলেছেন বলে মন্তব্য করেছেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার। মন্ত্রী বলেন, এখানে একজন ডাইরেক্টর থেকে শুধু করে কর্মকর্তা ও কর্মচারীও নিয়োগ দেয়া হয়েছে তাদের উন্নয়নের কথা চিন্তা করে জন্য।

মন্ত্রী আরো বলেন, ক্ষুদ্র নৃতাত্ত্বিক জনগোষ্ঠী যখন শিক্ষিত হবে তখন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং আওয়ামী লীগ সরকার ভিন্ন মন্ত্রণালয় করে দেয়ারও আশা রাখে। সেই ভাবে নিজেদেরকে তৈরি আগে করতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেভাবে বলেন সেভাবে আপনাদেরকে শিক্ষিত হতে হবে এবং গড়ে তুলতে হবে।

মন্ত্রী শনিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে নওগাঁর পোরশা উপজেলার কাতিপুর কালিনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় হতে বাস্তবায়নাধীন ক্ষুদ্র-নৃগোষ্ঠী শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষা বৃত্তি ও শিক্ষা উপকরন বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই মুজিববর্ষে ও বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৫০ বছর সুবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষ্যে ক্ষুদ্র নৃতাত্ত্বিক জনগোষ্ঠীর জন্য এই অনুদান পাঠিয়েছেন ৫২টি জেলায়। এবং মনে করি ক্ষুদ্র নৃতাত্ত্বিক জনগোষ্ঠীর জন্য এটি একটি আশীর্বাদ স্বরূপ। এবং এই আশীর্বাদ গ্রহণ করে ক্ষুদ্র নৃতাত্বিক জনগোষ্ঠী তাদের নিজেদের জীবনমান উন্নত করবে।

সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেন, এ বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পূর্বে আমাদের ক্ষুদ্র নৃতাত্ত্বিক জনগোষ্ঠী জীবনমান যে পরিমাণ খারাপ ছিল তা তারা নিজেরাই অনুমান করতে পারে এবং বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যখন ক্ষমতায় এসেছেন তখন আমাদের এ দেশের উন্নয়ন শুরু হয়েছিল। কিন্তু তাকে হত্যা করা হয়েছে। তাই তারই কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে আমরা ক্ষুদ্র নৃতাত্ত্বিক জনগোষ্ঠীর মান উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি।

মন্ত্রী বলেন, শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার আগে আমরা দেখেছি ও যত মিটিং করেছি আদিবাসীদের এই রকম চেহারা দেখি নাই। আদিবাসীদের ভালো কাপড় পরা দেখি নাই, পায়ে কোন জুতা ছিল না, এখন আদিবাসীরা ভালো জামা কাপড় পড়ে, জুতা পরে এবং জীবন মানের উন্নতি হয়েছে।

এ সময় মন্ত্রী আদিবাসী ছাত্র-ছাত্রীদের উদ্দেশ্যে বলেন, আজকে তোমরা ভালো জামা কাপড় পড়ো, স্কুলে-কলেজে যাও, মোবাইল ব্যবহার করো। এই হল জীবন মানের উন্নয়ন। আর সবকিছুই হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কারনেই। শেখ হাসিনা মানবতার জননী। এই দেশ সকলের দেশ। আমরা সবাই বাঙ্গালী। ভাষা যার যার ধর্ম তার তার। তাই তোমাদেরকে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হতে হবে। জীবনকে অবহেলা করলে হবে না। জীবনকে সুন্দরভাবে গড়ে তোলার ও আহবান জানান তিনি।

এসময় সাপাহার উপজেলা নির্বাহী অফিসার কল্যাণ চৌধুরীর সভাপতিত্বে পোরশা উপজেলা পিরষদের চেয়ারম্যান মঞ্জুর এ মোর্শেদসহ স্থানীয় প্রশাসনের কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।

পরে মন্ত্রী সমতল ভূমিতে বসবাসরত ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর আর্থসামাজিক মান উন্নয়নের লক্ষ্যে সমন্বিত প্রাণিসম্পদ উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় ১২০টি পরিবারের মাঝে ১২০টি গরু, ৫টি টিন, ১২০টি ইট, ৪টি খুঁটি ও ৫০দিনের খাদ্য বিতরণ করেন। এছাড়াও প্রতিবন্ধীদের মাঝে হুইল চেয়ার বিতরণ করেন।

এর আগে মন্ত্রী উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন।

বাংলাদেশ গ্লোবাল ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

সাম্প্রতিক খবর জানতে লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ

সর্বশেষ খবর

আরো পড়ুন