ঢাকা      রবিবার, ২২ মে ২০২২, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯
IMG-LOGO
শিরোনাম

আতশবাজি-ফানুস বন্ধে রিট

IMG
16 January 2022, 8:42 PM

ঢাকা, বাংলাদেশ গ্লোবাল: বিভিন্ন অনুষ্ঠান ও নববর্ষ উৎসবে আতশবাজি, ফানুস উড়ানো বন্ধ চেয়ে হাইকোর্টে রিট করা হয়েছে। রোববার (১৬ জানুয়ারি) হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় রিটটি করেন মিজানুর রহমান নামে এক আইনজীবী।

রিটে নববর্ষ বা অন্য কোনো উৎসবে শহর এলাকায় ফানুস উড়ানো পুরোপুরি নিষিদ্ধ চাওয়া হয়েছে। ফানুস উড়িয়ে মানুষের মানসিক ক্ষতি করায় এ রিটটি করা হয়।

সেই সঙ্গে থার্টি ফার্স্ট নাইটে আতশবাজির আতঙ্কে মারা যাওয়া শিশু উমায়েরের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার নির্দেশনাও চেয়েছেন রিটকারী আইনজীবী।

উল্লেখ, গত ৩১ ডিসেম্বর ইংরেজি নববর্ষ উদযাপনে ফানুস উড়ানোয় রাজধানীর অন্তত ১০টি স্থানে আগুন লাগার কথা জানায় ফায়ার সার্ভিস।

রাজধানীর তেজগাঁও, যাত্রাবাড়ীর মাতুয়াইল, ধানমন্ডি, রায়েরবাগসহ মোট ১০টি বাসার ছাদ ও সড়কের তারে আগুনের সংবাদ পায় ফায়ার সার্ভিস। প্রতিটি স্থানে ফায়ার সার্ভিসের ২টি করে ইউনিট পাঠানো হয়।

এছাড়া থার্টি ফাস্ট নাইটের রাতে ইংরেজি বর্ষবরণের উৎসবে মুহুর্মুহু আতশবাজির শব্দে চার মাস বয়সী শিশু উমায়ের অসুস্থ হয়ে ওইদিন রাতে রাজধানীর ‍মিরপুরের ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশনে ভর্তি হন। পরদিন পহেলা জানুয়ারি হাসপাতালে ভর্তির কয়েক ঘণ্টা বাদেই হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যায় ছোট্ট শিশুটি।

ওই রাতের বর্ণনা দিয়ে নিজের ফেসবুকে আইডিতে পোস্ট করেন ওই শিশুটির পিতা ইউসুফ রায়হান। সেখানে তিনি লিখেন, ‘কি বিকট শব্দে আতশবাজি। আমার ছোট বাচ্চাটি এমনিতেই হার্টের রোগী।

আতশবাজির প্রচণ্ড শব্দে শিশু বাচ্চাটি আমার ক্ষণে ক্ষণে কেঁপে ওঠে। খুব ভয় পাচ্ছে বলে মনে হচ্ছে। খুবই আতঙ্কের মধ্য দিয়ে সময়টা পার করছি। আল্লাহ তায়ালা আমাদের সন্তানদের বুঝ দান করুক। দোয়া করা ছাড়া আর কোনো উপায় নেই।’

এদিকে, জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯-এর পরিসংখ্যান বলছে, কেবল ২০২১ সালেই আতশবাজি, পটকা, উচ্চস্বরে গান-বাজনাসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানে শব্দদূষণের কারণে ৯৯৯-এ ফোন করে অভিযোগ আসে ৯ হাজারেরও বেশি।

এসব অভিযোগ এসেছে পরীক্ষার্থী, বয়স্ক ও অসুস্থ ব্যক্তিদের পরিবার থেকে। এমনকি অনেকে ঘুমের ব্যাঘাতেরও অভিযোগ করেছেন। এমন ফোন এসেছে ৯ হাজার ২৩৮টি। যেখানে ২০২০ সালে এমন অভিযোগের সংখ্যা ছিল ৭ হাজার ৯৫২টি। ফলে আগের বছরের তুলনায় বিদায়ী বছরের অভিযোগের হার বেড়েছে ১৬ শতাংশ।

পরিসংখ্যান বলছে, ২০১৯ সালে জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ অভিযোগ করেন ৫ হাজার ১৭ জন। সংবাদমাধ্যমকে জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯-এর দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, আতশবাজিসহ নানাভাবে শব্দদূষণে অতিষ্ঠ হয়ে জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ গত তিন বছরে অভিযোগ এসেছে ২২ হাজার ৭টি।

৯৯৯-এর ফোকাল পারসন (গণমাধ্যম ও জনসংযোগ) পুলিশ পরিদর্শক আনোয়ার সাত্তার সংবাদমাধ্যমকে জানান, রাতে উচ্চশব্দের ক্ষেত্রে লোকজনের বিবেচনাবোধ থাকা উচিত। সংশ্লিষ্ট থানাকে না জানিয়েই বিভিন্ন অনুষ্ঠানে লাউড স্পিকার ব্যবহার হচ্ছে। সাধারণত রাত ১২টার পরে অভিযোগগুলো আসতে থাকে। কেননা সে সময় শব্দ অসহনীয় হয়ে ওঠে। আবার সেসব সামাজিক অনুষ্ঠান বন্ধ করতে গিয়ে ভিন্ন প্রতিক্রিয়ারও মুখোমুখি হতে হয় পুলিশকে।

বাংলাদেশ গ্লোবাল/এমএস

সবশেষ খবর এবং আপডেট জানার জন্য চোখ রাখুন বাংলাদেশ গ্লোবাল ডট কম-এ। ব্রেকিং নিউজ এবং দিনের আলোচিত সংবাদ জানতে লগ ইন করুন: www.bangladeshglobal.com

সর্বশেষ খবর

আরো পড়ুন